সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কম্বলে মুড়িয়ে ‘ডাস্টবিনে’ নবজাতককে ফেলে গেলেন মা চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিদিরপুরে ককটেল বিস্ফোরনে আহত ১ ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনসিসি’র র‌্যালী, লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ মা-বাবা মারা গেছেন, ১০ বছরের শিশুকে ট্রেনে ফেলে গেলেন ভাই-ভাবি! চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ বন্দর দিয়ে ৩ দিনে চাল আমদানি ১২১৬ মেট্রিক টন চাঁপাইনবাবগঞ্জে হেরোইন-ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ২ গোমস্তাপুরে যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত দুই অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগ বরিশালে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৬ দুর্গাপুরে দোকান সমিতির ধর্মঘট ১৫ দিনের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে যেভাবে উদ্ধার চীনা শ্রমিকরা গণতন্ত্র চর্চায় শেখ হাসিনা অনন্য: ওবায়দুল কাদের চাঁপাইনবাবগঞ্জে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক কল্যান সমিতির মানববন্ধন সিলেট এমসি কলেজে গৃহবধূ ধর্ষণ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ বুধবার ব্যাচেলর পার্টি করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় বরুণ ভূমিকম্পে কাঁপল চিলি, সুনামির ভুল বার্তায় আতঙ্ক মানিকছড়িতে বাস খাদে পড়ে নিহত ১, আহত ১৫ দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির নিয়মিত ক্লাস হবে: শিক্ষামন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে এবার প্রথমে টিকা নিতে বললেন ফখরুল হাইকোর্টের সামনে নিহতের হত্যাকারী চিহ্নিত, যে কোনো সময় গ্রেফতার

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভূয়া পুলিশ নিয়োগের মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে ১০ জনকে সাঁজা দিলেন আদালত

কপোত নবী
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩৫ জন পড়েছেন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভূয়া পুলিশ নিয়োগের মামলায় ১০ আসামীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাঁজা দিয়েছেন আদালত। সদর মডেল থানায় গত ২০১৮ সালের ৫ মার্চ এজাহার নামীয় ৯ জন ও অজ্ঞাত ৭/৮ জনকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। এ মামলাটির বাদী, ডিবি পুলিশের এস আই মো. গোলাম রসুল।

মঙ্গলবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. হুমায়ুন কবীর এ রায় দেন। দন্ডিত আসামীরা পরস্পর যোগসাজশ করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পুলিশের কনস্টেবল পদে দুই যুবককে নিয়োগ দিতে চেয়েছিলেন।

এ মামলায় আগেই গ্রেপ্তার হওয়া ২ যুবক লিখিত পরীক্ষা না দিয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে গেলে তাদের সন্দেহাতীতভাবে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশের একটি দল। পরে জিজ্ঞাসাবাদে ২ যুবক ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে লিখিত পরীক্ষা না দিয়ে শুধুমাত্র মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগের বিষয়টি স্বীকার করেন।

জানা গেছে, মামলাটিতে মোট ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। আসাদুল্লাহ আল গালিব নামের এক আসামী আগেই আদালতের বিজ্ঞ বিচারকের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

মামলার তদন্ত শেষে আদালতে দাখিল করা অভিযোগ পত্র, সাক্ষীদের আদালতে প্রদত্ত সাক্ষ্য, এক আসামীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী এবং পারিপার্শ্বিক দিক বিবেচনা করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. হুমায়ুন কবীর মঙ্গলবার ১০ আসামীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাঁজা দেন।

আসামীদের মধ্যে সালাম, মনিরুল, আনোয়ার মাস্টার ও তাজেরুন মেম্বারসহ প্রত্যেককে ৩ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ডে দন্ডিত করেন। অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেন।

এ ছাড়া আসামী সেতু, তরিকুল, মোরশেদ, আসাদুল্লাহ আল গালিব, আমিন আলী ও শ্রী ফুলচান সিংহসহ প্রত্যেককে ২ বছরের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেন। মামলার অপর আসামী মোকাররমের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে বেখসুর খালাস প্রদান করেন আদালত।

রাষ্ট্র পক্ষের কৌশুলী জানান, দীর্ঘ ২ বছর বিচারকার্য শেষে যুগান্তকারী একটি রায় দিয়েছেন আদালত। এ রায়ে ভূয়া নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত হওয়ায় ভুক্তভোগীরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Theme Developed BY Ashik